Air Pollution: Reasons Why People Should Pay Attention - We Talk about Nature spankbang xxnx porncuze porn800.me
Connect with us

Pollution

Air Pollution: Reasons Why People Should Pay Attention

Published

on

https://pixabay.com/photos/air-pollution-smoke-environment-3908906/

Air pollution is one of the most severe predicaments that the modern world has ever faced and continues to face. It is so grave that the current pollution levels cannot be left as they are. And, both industry and government across the world must immediately prioritize the reduction of these air pollutants.

Household air pollution was responsible for 2.6 million deaths (4.7% of the global total) and 77 million DALYs (3.2% of the [worldwide] total) in 2016.”

Note: DALYs is an acronym for “Disability-Adjusted Life Years” Essentially, a DALY is considered to be one lost year of healthy life by the World Health Organisation.

Air pollution: Definition and Causatives

Before we look at the myriad of reasons why it is vital to pay attention to the high levels of contamination in the air we breathe, let’s look at a simple definition of air pollution.

Succinctly stated, the phrase “air pollution” indicates that the atmosphere is contaminated by toxic chemical particles and biological matter. The Blacksmith Institute noted in 2008 that the globe’s two worst pollution headaches are urban air quality and indoor air pollution.

Air Pollution: Measurements

Air pollution statistics are measured in several different ways. For example, in the United States, the EPA (the United States Environmental Protection Agency) computes the following seven distinct pollutants: carbon monoxide, lead, mercury, nitrogen and sulfur dioxide, ozone, and particulate matter.

These pollutants are released into the air by the following methods:

  • Burning of fossil fuels like coal, oil, natural gas, and gasoline (petroleum).
  • Particles are released in the air by agricultural activities like plowing and burning of fields, burning wood for cooking and heat, and use of volatile organic compounds like solvents and paint.

It is equally important to note what causes each of these seven pollutants. Therefore, here is a detailed description of the causes of each contaminant.

  • Carbon monoxide and nitrogen oxides are released into the air through the burning of natural gas, coal, oil, and petroleum (gasoline).
  • Ozone is considered a secondary pollutant and is released as a result of the chemical reactions between Volatile Organic Compounds and Nitrogen Oxides.
  • Sulfur dioxide is caused by the burning of high-sulfur coal and oil to facilitate industrial processes like metal smelting and paper processing.
  • Lead is released into the atmosphere by the burning of fossil fuels, petroleum-containing lead, metal refineries, and the manufacture of batteries.
  • Mercury is produced in a similar fashion to lead. Succinctly stated the burning of fossil fuels, mining, and industrial processes like incineration and smelting of metals.
  • Particulate matter is primarily caused as a result of different chemical processes, burning wood, coal, and diesel, and agricultural processes like excessive plowing of fields.

Thus, by studying the above information, it is essential to note that, in summary, the primary cause of air pollution is the burning of fossil fuels like coal, wood, natural gas, petroleum (gasoline), and oil. Thus, it makes sense to conclude that, in order to reduce air contaminants, it is critical to stop burning fossil fuels. Or, if it is essential to burn fossil fuels, it is vital to develop cleaner burning techniques that release fewer pollutants into the air.

The consequence of air pollution

It is not enough to define air pollution and state its causes in depth. It is equally important to note its consequences because the ramifications of air pollution provide the primary drivers for the discussion around why it is critical to do everything possible to reduce the high levels of atmospheric pollutants.

Before we look at the two major categories of air pollution, namely the environment and human health, here is an example of how air pollution can have a negative effect of both the environment and human functioning:

Furthermore, the consequences of air pollutions can be divided into the following two major sections:

The effect on the environment

The polluted air floats on the earth’s surface, and it is often transported to regions far away from its origin by wind, clouds, rain, and high temperature.

A typical example of how air pollutants have a far-reaching impact on the world is the 2010 eruption of the Icelandic volcano, Eyjafjallajökull. Not only did the resultant volcanic ash disrupt air traffic across Northern and Western Europe for at least 50% of April 2010, the ash destroyed agricultural crops, grazing pastures, and forced farmers to keep cattle and horses.

The impact on human health

The volcanic ash from the Eyjafjallajökull did not cause any human fatalities. However, the ash particles floating in the air caused respiratory symptoms in people living close to the volcano.

It is vital to note that, although in this case, the result of the air pollution was not severe as it could be, air contaminants are known to result in severe cardiovascular problems and even mental development problems in children. It is safe to conclude that pregnant women, children, the elderly, and everyone with a compromised immune system are at risk.

Final thoughts

In conclusion, the raison d’etre for this article is to provide an argument for the immediate reduction in air pollutant levels. If the various global sectors like industry, government, and NGOs do not put agile and actionable policies and procedures in place to substantially reduce air pollution levels, the impact on the environment and human health and wellbeing will be dire.

Pollution

Aquatic Pollution: Definition, Types, And Effects

Published

on

Aquatic pollution
Image Credit : Pixabay (422737)

Water is one of the primary ingredients of this planet earth. It is essential for all living beings on this planet. That is why; aquatic pollution is something that is of real concern.

Definition of the term “ Aquatic Pollution”:

Water pollution is the result of the constant contamination of the water bodies of planet earth (starting from lakes to oceans). As the percentage of drinkable water is really limited in comparison to the total amount of water on earth, aquatic pollution has become a matter of serious concern for all of us.

What causes Aquatic Pollution?

The fact that water is the fundamental necessity of every living being makes the water more prone to get polluted by contaminants. Water, by nature, is very much accepting. So, almost every kind of substance gets mixed in water. Due to this, any kind of unhealthy substances emitted by nature or mostly by human beings causes the water sources of the planet to get polluted.

Types and Variations:

Just like the presence of various water bodies, there are different kinds of water pollution as well.

  • Groundwater Pollution:

Groundwater is one of the most important sources of drinkable water. Majorities of people depend on groundwater sources for their everyday needs. Fertilizers and pesticides are the major pollutants in this case. They contaminate the water source from landfills and septic systems. In this way, a majority of the drinkable water gets contaminated. Purifying this contamination can be really costly and difficult. Groundwater pollution spreads and contaminates other water sources as well.

  • Surface Water Pollution:

Water sources available on lakes and rivers are described as surface water sources. Nitrates and phosphates, which are actually nutrients, are the main contaminants that are responsible for the surface water pollution. Although these nutrients are necessary for living entities they pollute the water by getting mixed up with wastages from farms and pesticides. Apart from this, the discharges from municipalities and the industrial belts are responsible for contaminating these surface water sources as well.

  • Ocean Water Pollution:

Although the name is ocean pollution, the cause is associated mainly with the land. Industrial emissions contribute mainly to this. Along with this, wastages from hundreds and thousands of cities around the world get thrown into the ocean causing ocean water pollution. Oil emitted from ship leaks as well as contaminates oceans.

The sources of the pollutants can be various too-

  • Point Sources:

If the source is similar for the various contaminants- it is called point source pollution. For instance, wastewater causes such pollution. Wastewater- discharged either from septic systems, or industries. Although the source of contamination is fixed in this case, this is responsible for affecting a major portion of water sources.

  • Non-Point Sources:

The sources of contamination are different in this case. The sources are various here- starting from agricultural waste to discharges from lands. Because of these various sources, it is harder to regulate this kind of pollution.

How Aquatic Pollution affects us?

Water is one of the primary elements of life. So aquatic pollution affects the primary necessity of all living beings around the planet. The effects of water pollution are various-

  • Human health- If water is known to be the source of life then, to sum up, polluted water is equivalent to death. Millions of people die because of this every year. The number of people getting affected and sick because of drinking contaminated water is more than a billion per year. Some of the water-borne diseases are- cholera, giardia, and typhoid.
  • Environment- Nature is all about balance. Every element of nature keeps the ecosystem intact and working. So, when water, one of the most important elements of this system gets contaminated, other inhabitants get affected too. For instance, algal blooms in several water bodies can make that area devoid of oxygen and devoid of life.

Similarly, when the ocean gets contaminated, it results in killing a lot of living creatures of that ocean. Many of the species have become extinct for the rising aquatic pollution every year.

When it comes to contaminated water, the list of ill effects does not end. That is why; it is extremely important to become more and more aware of this crisis and find a way out of this.

Continue Reading

Bengali Edition

পরিবেশ দূষণ বিশ্বজগতের মানব সভ্যতাকে বিঘ্নিত করছে

Published

on

Poribesh Duson
Image credit : Pixabay (Cifer88)

সৃষ্টির আদিকাল থেকে মানব জগতের সাথে পরিবেশের সম্পর্ক  অতি গভীর। আমাদের চারিপাশে পাহাড়-পর্বত, নদ-নদী, গাছপালা, পশুপাখি নিয়ে গঠিত এই পরিবেশ। মানুষ হল পরিবেশগত জীব। মানুষ উদ্ভিদ এবং জীবজন্তুর সাথে খাদ্য শৃঙ্খলে আবদ্ধ, তাই  মানুষের সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য অত্যন্ত প্রয়োজন সুস্থ পরিবেশের । কিন্তু আমাদের পালয়িত্রী বসুন্ধরা আজ আর সুস্থ নেই ।বর্তমান সময়ে আমাদের পরিবেশ দূষণ  ভারে জর্জরিত হয়েছে। এই পরিবেশ দূষণের ফলে মানুষের অস্তিত্ব আজ চরম সংকটে 

পরিবেশ দূষণ কাকে বলে

মানুষের বিভিন্ন কার্যকলাপের থেকে নিঃসৃত ক্ষতিকারক পদার্থগুলি পরিবেশের সঙ্গে সংমিশ্রিত হয়ে পরিবেশ দূষণ এর সৃষ্টি করে। এই পরিবেশ দূষণ  বিভিন্ন প্রকারের দেখা যায় যেমন — জল দূষণ, বায়ু দূষণ, মাটি দূষণ প্রভৃতি। কিন্তু সৃষ্টির প্রথম আলোতে পরিবেশের এমন রূপ দেখেনি মানব জাতি। পৃথিবীতে প্রথম মানব সৃষ্টির সময়  জল, স্থল, বায়ুমন্ডল সম্পূর্ণরূপে বিশুদ্ধ ছিল। মানব সভ্যতার বিজয় রথের ক্রমবর্ধমান আগ্রাসনের ফলে তৈরি হয়েছে পরিবেশ দূষণ।  প্রকৃতিকে অনেক কষ্ট দিয়েছে মানুষ। প্রকৃতির ব্যাথা আজকের মানুষ বোঝে না, বোঝেনা প্রকৃতির যন্ত্রণাটা। সমস্ত সীমা লংঙ্ঘন করে একের পর এক গাছ কেটেছে, প্লাস্টিকের ব্যবহার করেছে, অপ্রয়োজনে নানারকম গাড়ি ব্যবহার করেছে মানুষ। মানুষের চরম নিষ্ঠুরতার জন্য কোথাও তৃণভূমি পরিণত হয়েছে মরুভূমিতে,  সাগরের মাঝে হঠাৎ দেখা গেছে বড় পর্বতের অবস্থান, বায়ুমন্ডলের তাপ বেড়ে যাওয়ার ফলে সুমেরু কুমেরুতে বরফ গলতে শুরু করেছে, ওজোন স্তর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে —এই সবই মানুষের অকৃতকার্যের ফল। মানুষের অপকর্মের ফলেই আজ ধরিত্রী বড় অসুখের সম্মুখীন হয়েছে।  

পরিবেশ দূষণ কীভাবে মানবজীবনে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে? 

পরিবেশ দূষণ বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে— জল দূষণ, বায়ু দূষণ, মাটি দূষণ প্রভৃতি। বিজ্ঞানের ক্রমবর্ধমান আবিষ্কারের ফলে মানুষ যেমন বিজ্ঞানের সুফল ভোগ করছে তেমনি ভোগ করছে  কুফলও। মানুষ এখন ভালো ফসল ফলানোর লক্ষ্যে উর্বর জমিতে ব্যবহার করছে নানা রাসায়নিক সার ও কীটনাশক পদার্থ। এই উৎপন্ন ফসলগুলি মানুষ খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করে নানা মহামারী অসুখের শিকার হচ্ছে। এই কীটনাশক পদার্থ মাটির সাথে মিশে যাওয়ার ফলে সৃষ্টি হচ্ছে মাটি দূষণের এবং মাটির উর্বরতা শক্তি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। মাটির উর্বরতা শক্তি কমে যাওয়ার ফলে ভবিষ্যতে ওই জমিতে ফসল হওয়ার সম্ভাবনাও কমে যাচ্ছে। এই কীটনাশক পদার্থ  জলের সাথে সংমিশ্রিত হয়ে জল দূষণের সৃষ্টি করছে।   জল দূষণের ফলে মানুষ নানা চর্ম রোগ, কলেরা, জন্ডিস প্রভৃতি রোগের সম্মুখীন হচ্ছে। জল দূষণের ফলে বহু মাছের মৃত্যু ঘটছে। মাছের মৃত্যু ঘটার জন্য বিশ্বে মাছের যোগান কমে যাচ্ছে। শহরাঞ্চলের গাড়ির তীব্র হর্ন, মাইকের আওয়াজ শব্দ দূষণের মাত্রাকে  দ্রুত হারে বাড়িয়ে চলেছে। মানুষের পক্ষে ৪১ ডেসিবেলের বেশি মাত্রার শব্দ ক্ষতিকারক, কিন্তু শহরাঞ্চলে অনেক সময় শব্দের মাত্রা ১২৫ ডেসিবেল ছাড়িয়ে যায়, ফলে শব্দ দূষণের সৃষ্টি হচ্ছে। 

পরিবেশ দূষণ প্রতিকারের নিয়ম

শহর ও গ্রামে দৈনন্দিন জীবনের দিকে যদি  চক্ষু মেলিয়া  তাকানো হয়  তাহলে দেখা যাবে বিজ্ঞানলক্ষী তাঁর কল্যাণ হস্তে অকৃপণ সুখ বিলাস বৈভবের ডালি ভরে দিয়েছে। বিজ্ঞানের কল্যাণকর কার্যকারিতা দেখলে স্বাভাবিকভাবেই মনে হতে পারে প্রকৃতির এই অসুস্থতার কারণে জন্য দায়ী এই বিজ্ঞান। বসুন্ধরার অসুস্থতার জন্য দায়ী বিজ্ঞান নয়, দায়ী মানুষের স্বভাব, প্রবৃত্তি, মনোভাব, লোভ ও হিংসা। দূষণের প্রতিকারের জন্য বনাঞ্চল বৃদ্ধি এবং সংরক্ষণের ব্যবস্থা করার প্রয়োজন আছে। পরমাণু বিস্ফোরণ বন্ধ করতে হবে। কলকারখানার ধোঁওয়া নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। কলকারখানার এবং শহরের নোংরা জল, বজ্র পদার্থ নদী-নালাতে ফেলা অবিলম্বে বন্ধ করা উচিত। জমিতে রাসায়নিক সার ব্যবহার কমানোর জন্য কৃষকদের নানা প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা উচিত। শব্দ দূষণের মাত্রা কমানোর জন্য  বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েত এবং পৌরসভাকে উদ্যোগি হতে হবে। পরিবেশ দূষণকে রোধ করার জন্য নানা আইন প্রণয়ন এবং আইনের যথাযথ প্রয়োগ করা উচিত। 

উপসংহার

ধরিত্রী মায়ের অসুখের ফলে সম্পূর্ণ মানব জাতি ধ্বংস হয়ে যেতে পারে, হয়তো সেই ভয়েই মানুষ কিছুটা হলেও পরিবেশ রক্ষায় সচেতন হয়েছে। প্রতিবছর ৫ ই জুন দিনটি বিশ্ব পরিবেশ দিবস হিসেবে  পালিত হয়। মানুষের জন্যই এই পরিবেশ দূষিত হয়েছে, তাই মানুষকেই এই পরিবেশকে দূষণমুক্ত করতে নানা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। তবেই হয়তো একদিন সুস্থ পরিবেশ গড়ে উঠবে আর মানব সভ্যতা ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা পাবে। 

লেখিকা : নুপুর চট্টোপাধ্যায়, কলকাতা !

Continue Reading

Bengali Edition

পরিবেশ দূষণের সম্মুখীন হচ্ছে বিশ্বের সমস্ত দেশগুলো, প্রভাব পড়ছে মানব স্বাস্থ্যেও

Published

on

পরিবেশ দূষণ
Image credit : Pixabay (TheDigitalArtist)

দিম গুহাবাসী মানুষ যখন প্রথম আগুন এবং চাকা বানাতে শিখল তারপর থেকেই জয়যাত্রা শুরু হলো মানব সভ্যতার।  সভ্যতার উন্নতির সাথে সাথেই মানুষ যেন একটু একটু করে ক্রমাগত দূরে চলে এসেছে প্রকৃতি থেকে। পরিকল্পনাহীন নগর পত্তন, তীব্র ভোগবাদী মানসিকতায় মানব জাতি ধ্বংস করতে থাকে একের পর বন-জঙ্গল। বিষিয়ে উঠতে থাকে জল, বাতাস।  যার ফলশ্রুতি হিসেবে পৃথিবী ব্যাপী সমগ্র দেশেই এখন পরিবেশ দূষণ এবং পরিবেশ সম্পর্কিত সমস্যার মতো এক গভীর সংকটের মুখে পড়েছে। 

পরিবেশ বলতে কী বোঝায়?

পরিবেশ বলতে এক কথায় আমরা বুঝি মানুষের আশেপাশে থাকা সমস্ত প্রাণীকূল, জীব বৈচিত্র্য নিয়েই পরিবেশ। আকাশ, বায়ু, জল, বিভিন্ন উদ্ভিদ, প্রাণী বৈচিত্র নিয়েই আমাদের পরিবেশ। প্রাকৃতিক ভারসাম্য বিনষ্ট না করেই পরিবেশ মানব সমাজ এবং অন্যান্য জীবদের লালন করে, বৃদ্ধি করে, ভার বহন করে, বংশবিস্তারে সাহায্য করে, চলন-গমনে সহায়তা করে এবং বেঁচে থাকার জন্য যোগান দেয় উপযুক্ত খাদ্যের। সেই সুদীর্ঘকাল ধরেই বিভিন্ন ধরনের পরিবেশে বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণী গোষ্ঠী বেঁচে আছে।
 

পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলের পরিবেশ বিভিন্ন রকমের। জলবায়ু, মাটির বৈচিত্র্য, জীব বৈচিত্র্যও এক একটি জায়গায় এক এক রকম। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় যে, মোঙ্গোলিয়ায় ঊষর এবং রুক্ষ পাহাড় হলে ভারতের নাগাল্যান্ডের পাহাড় ঘাসের মতো নরম বাঁশ গাছে সবুজ। কোথাও নাতিশীতোষ্ণ জলবায়ু হলে কোনো জায়গায় বছরের প্রায় বারোমাসেই বর্ষাকাল থাকে। আর এই রকমারি পরিবেশের ওপরেই নির্ভর করে আছে হরেক রকম প্রাণী ও জীবজন্তুর জীবনযাত্রা।

পরিবেশ দূষণ:- 

গত বেশ কয়েক বছর ধরেই পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের প্রাণীবিদ এবং প্রকৃতি বৈজ্ঞানিকেরা ক্রমাগত সচেতন এবং সতর্ক করার চেষ্টা করেছেন আমাদের। জানিয়েছেন ভবিষ্যতের নিদারুণ সংকটের কথা। মানব সভ্যতার লোভ, অবিবেচকের মতো কার্যকলাপের ফলে যে ক্রমশ পৃথিবীর পরিবেশ বিষিয়ে উঠছে এবং তার ফলে মানব জীবন তথা উদ্ভিদ এবং সমস্ত প্রাণীজগতের সামনেই দেখা দিয়েছে নিদারুণ সংকট। 

যন্ত্র সভ্যতা, আণবিক এবং পারমাণবিক অস্ত্রের প্রয়োগ, বেআইনি খনিজ সম্পদের নিষ্কাশন, মানুষের অস্বাভাবিক হারে বংশবৃদ্ধি, কারখানার থেকে বিষাক্ত বর্জ্য পদার্থ অপসারণের ফলে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। 

দ্রুত গতিতে বংশ বিস্তারের ফলে বিভিন্ন দেশগুলোর কাছে অন্যতম সমস্যা হয়ে দাঁড়াচ্ছে জনস্ফীতি। ব্যাপক হারে অভাব ঘটছে বসবাসযোগ্য স্থানের। ফলে কাটা পড়ছে একের পর এক বন, পুকুর ভরাট হয়ে গড়ে উঠছে ইমারত। খাদ্যের যোগান দিতে গিয়ে জমিতে রাসায়নিক সার এবং কীটনাশক ব্যবহারের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে হলো। যার ফলাফল জমির স্বাভাবিক উর্বরতা শক্তি কমতে শুরু করেছে। এসি, ফ্রিজের, যানবাহনের অতি ব্যবহারেও ক্ষতিগ্রস্ত হতে শুরু করেছে ওজোন স্তর। পরিবেশ দূষণের প্রত্যক্ষ ফলাফল এসে পড়ছে আমাদের শরীর-স্বাস্থ্যের ওপরেও। 

বিশ্ব ব্যাংকের ২০১৫ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী শুধুমাত্র বাংলাদেশেই মোট মৃত্যুর প্রায় ২৬% সংখ্যায় ৮০ হাজার মানুষের দূষণের কারণেই মৃত্যু হয়েছে। এশিয়ার অন্যতম দেশ গুলো- ভারতে ২৬.৫%, মালেশিয়াতে ১১.৫%, পাকিস্তানে ২২.২%, আফগানিস্তানে ২০.৬% এবং শ্রীলঙ্কাতে ১৩.৭% মানুষের মৃত্যু হয়েছে দূষণের কারণেই। 

পরিবেশ দূষণ চার রকমের হয়ে থাকে।

ক) বায়ু দূষণ

খ) জল দূষণ 

গ) মৃত্তিকা দূষণ

ঘ) শব্দ দূষণ 

বিশ্বে মোট ৯ মিলিয়ন মৃত্যুর কারণের জন্য দায়ী পরিবেশ দূষণ। বিশ্বব্যাপী মোট মৃত্যুর প্রায় ১৬%। এইচআইভি এইডস, টিউবারকোওলসিস এবং ম্যালেরিয়াতে মৃত মোট মৃত্যুর থেকে ৩গুণ বেশি এবং প্রায় ১৫% বেশি পৃথিবীব্যাপী সমস্ত যুদ্ধ মৃত সংখ্যা থেকে। 

ক) বায়ু দূষণ:-

যানবাহন, শিল্পোৎপদান কলকারখানার ফলে বাতাসে ক্রমেই বেড়ে চলেছে নানান ক্ষতিকারক উপাদান। বিশ্ব ব্যাংকের ডেটা অনুযায়ী পুরো বিশ্বের জিডিপির প্রায় ৪.৮% অর্থাৎ ৫ .৭ ট্রিলিয়ন ডলার কেবলমাত্র বায়ুদূষণের ফলেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ২০১৮-২০১৯ সালের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বাতাসে ভাসমান পিএম১০ কণার উপস্থিতির ওপর নির্ভর করে যে পরিসংখ্যান হয়েছিল তাতে প্রথম পাঁচটি শহরের মধ্যে রয়েছে-

১) দিল্লী, ২৯২

২) কায়রো, ২৮৪

৩) ঢাকা, ১৪৩

৪) মুম্বই, ১০৪

৫) বেজিং, ৯২

২০২০ সালে বায়ুদূষণের হারে দিল্লীকে টেক্কা দিয়ে প্রথম স্থান নেয় গাজিয়াবাদ।  দিল্লী এখন পঞ্চম স্থানে। বিশ্বের প্রথম ২০ টি সবচেয়ে দূষিত শহরের মধ্যে ১৪টি শহরই রয়েছে ভারতের। 

বিশ্ব ব্যাংক অনুযায়ী বাতাসে ভাসমান পিএম২.৫ কণার উপস্থিতিতে যে প্রথম পাঁচটি দেশ এগিয়ে আছে-

১) ইউনাটেড আরব এমিরেটস/ ইউএই, ৮০

২) মাউরটেনিয়া, ৬৫

৩) সৌদি আরব, ৬২

৪) লিবিয়া, ৩৭ এবং নিগারেও ৩৭ 

৫) মালি, ৩৪

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নির্ধারিত ১০ মাইক্রোগ্রাম পার কিউবিক মিটার থেকে যা অত্যন্ত বেশি। 

 WHO থেকে আরো জানা যায় যে প্রতিবছর প্রায় ৪.২ মিলিয়ন মৃত্যুই হয় কেবল মাত্র বায়ুদূষণের জন্য। 

খ) জল দূষণ:- 

কলকারখানা তরল বর্জ্য পদার্থ, চাষের জমিতে প্রয়োগ করা সার এবং কীটনাশক, শহর এবং গ্রামের নালা নর্দমা, পণ্যবাহী জাহাজের থেকে নির্গত প্লাস্টিক গিয়ে মিশছে জলে। যার ফলে স্বাদু জল এবং লবনাক্ত জল দুই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। WHO এবং ইউনিসেফের মতে  বিশ্বের ২.১ বিলিয়ন মানুষের কাছে পান করার যোগ্য জল নেই। পরিস্রুত স্বাদু জলের সর্বাধিক অভাব রয়েছে এমন ৫ টি দেশ হলো-

১) উগান্ডা 

২) ইউথোপিয়া 

৩) নাইজেরিয়া

৪) কম্বোডিয়া 

৫) নেপাল

২০১৮-২০১৯ সালে বিশ্বের স্বাদু জলের মোট ৭০% শতাংশ চাষবাসের খাতে ব্যবহার হয়। কিন্তু ২০৫০ সালে পৃথিবী ব্যাপী ৫০% চাষাবাদ বৃদ্ধি করার সাথে সাথে ১৫% স্বাদু জলের ব্যবহার কমানোর দিকেও নজর দিতে হবে। 

স্বাদু জলের একটি বড়ো উৎস হলো নদী। কিন্তু ক্রমাগত প্লাস্টিকজাত বর্জ্য পদার্থ, কেমিক্যাল বর্জ্য পদার্থ, জৈব বর্জ্য পদার্থ ইত্যাদির ফলে নদীগুলো ক্রমে দূষিত হচ্ছে। ২০১৯ সালে পৃথিবীর প্রথম পাঁচটি সর্বাধিক দূষিত নদী হলো-

১) গঙ্গা নদী

২) সিটারাম নদী

৩) ইয়েলো নদী

৪) সারনো নদী 

৫) বুড়িগঙ্গা নদী 

শিল্প কারখানা থেকে নির্গত  নাইট্রোজেন এবং ফসফরাস, এছাড়াও পণ্যবাহী জাহাজের তেলের জন্যেও সমুদ্রের জলের পুষ্টিগত মান তথা অক্সিজেনের অভাব ঘটছে। ফলে টুনা, মার্লিন, হাঙরসহ একাধিক প্রাণী এবং সামুদ্রিক উদ্ভিদের প্রাণ আশংকা রয়েছে। পুরো বিশ্বের সাতশোটিরও বেশি সামুদ্রিক এলাকায় ক্রমাগত অক্সিজেনের পরিমাণ হ্রাস পাচ্ছে, অথচ ১৯৬০ এর দিকে এই সংখ্যা ছিল ৪৫ টি।

গ) মৃত্তিকা দূষণ:-

মাইক্রোপ্লাস্টিক, বেআইনি মাইনিং, রাসায়নিক সার, কীটনাশক এবং আগাছানাশক, কলকারখানার বর্জ্য নির্গমন ইত্যাদির ব্যবহারের ফলে মাটি দূষণ হয়ে থাকে। দূষিত মাটিতে যে সমস্ত পদার্থ খুঁজে পাওয়া যায়-

১) হাইব্রোকার্বন ৪২% 

২) হেভি মেটাল ৩১%

৩) মিনারেল তেল ২০% 

৪) অন্যান্য পর্দাথ ৭%

উত্তর আমেরিকা এবং পশ্চিম ইউরোপের বেশ কিছু দেশে দূষিত মাটির আধিক্য দেখা যায়। কিন্তু এসব দেশগুলোতেও পরিবেশ দূষণ আইন রয়েছে। কিন্তু আর সমস্ত উন্নয়নশীল দেশগুলোর মতোই এই সমস্ত দেশেও পরিবেশ দূষণ বিষয়ক আইনে ছাড় দেওয়া হয়। মৃত্তিকা দূষণের ফলে কিডনি, হার্টের সমস্যা, মাথা ঘোরা এবং বমি বমি ভাবের মতো রোগ হতে পারে মানুষের শরীরে। উদ্ভিদের বিকাশ এই মাটিতে কার্যত অসম্ভব কারণ এই মাটির পুষ্টিগত মান নেই বললেই চলে তাই এই সমস্ত স্থানের উদ্ভিদ স্বল্পায়ু হয়। অজৈব অ্যালুমিনিয়ামের উপস্থিতির উদ্ভিদদের অনুকূলেও নয়। বায়োকিউমিলেশন প্রক্রিয়ায় দূষিত পদার্থ জমিয়ে রাখা উদ্ভিদদের খাদ্য হিসেবে কোনো প্রাণী গ্রহণ করলে তার মৃত্যুও হতে পারে।

ঘ) শব্দ দূষণ:- 

যান্ত্রিক সভ্যতার বিকাশের সাথে সাথে বৃদ্ধি পেয়েছে শব্দ দূষণের মাত্রাও।  প্রধানত শহরাঞ্চল, শিল্পাঞ্চলের দিকেই এর তীব্র মাত্রা থাকে। WHO থেকে নির্ধারিত করা হয়েছে ৬৫ ডেসিবেলের অধিকমাত্রার যেকোনো শব্দকেই দূষণ হিসেবে ধরা হবে। 

পৃথিবীর সবচেয়ে শব্দ জনিত দূষিত শহরের মধ্যে প্রথম পাঁচটি হলো-

১) সাংহাই,  চিন

২) নিউ দিল্লী, ভারত

৩) কায়রো, ঈজিপ্ট 

৪) মুম্বাই,  ভারত

৫) ইস্তানবুল, টার্কি

শব্দ দূষণের অন্যতম উৎস গুলোর মধ্যে প্রধান উৎসগুলো হলো-

১) যানবাহনের শব্দ- একটি গাড়ির আওয়াজ ৯০ ডেসিবেল এবং একটি বাস ১০০ ডেসিবেল পর্যন্ত শব্দ তৈরী করতে পারে। 

২) এয়ারট্রাফিক- সমস্ত শহরে এয়ারট্রাফিক না থাকলেও এর ক্ষতি সাধনের পরিমাণ অনেক বেশি। প্রায় ১৩০ ডেসিবেল শব্দ উৎপাদন করে। 

৩) কনসট্রাকশন সাইট- ইমারত, পার্কিং, রাস্তা এবং ফুটপাথ তৈরির সময়েও শব্দ দূষণ হয়। শুধুমাত্র ড্রিল মেশিন গুলোর তীব্রতা থাকে ১১০ ডেসিবেল। 

দিওয়ালি, নববর্ষ সেলিব্রেশনের সময়ে শব্দবাজি ফাটানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে ভারতে। কানে শোনার সমস্যা, হার্টের অসুখ, মাইগ্রেনের মতো শারীরিক সমস্যা বৃদ্ধি পায় শব্দ দূষণের ফলে। 

বৈঠক:- 

এই বছর চেজ রিপাবলিকের প্রাগে ১০ তম International Conference on Environmental Pollution and Remediation এর বৈঠক হতে চলেছে ১৯ আগস্ট থেকে ২১ আগস্ট।  এবারের বিষয় বস্তুগুলো হলো- 

১) বায়ু দূষণ 

২) জৈব জ্বালানি 

৩) গ্রিন হাউসের প্রভাব এবং গ্লোবাল ওয়ার্মিং

৪) মৃত্তিকা দূষণ 

৫) জল দূষণ 

৬) ভূ-গর্ভস্থ জলের ব্যবহার প্রভৃতি।

উপসংহার:-

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অনুযায়ী পৃথিবীর প্রায় ৯১% জীবন সরাসরি পরিবেশ দূষণের কারণে প্রভাবিত হয়। বিলাসী জীবন যাপনের জন্য মানব সভ্যতা ক্রমশ প্রকৃতির রস নিষ্কাশন করে গেছে, যার ফলাফল একের পর এক সাইক্লোন, বন্যার মতো দুর্ঘটনা। ক্ষতিসাধনের যে খেলায় মানুষ মেতেছে, তা অবিলম্বে বন্ধ করে উপযুক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে। পৃথিবীতে আবার গড়ে তুলতে হবে শ্যামল সুন্দর সবুজের মায়া। পরের প্রজন্মের জন্য এই পৃথিবীকে বাসযোগ্য করে তোলার নৈতিক দায় সবাইকেই ভাগ করে নিতে হবে।

আরো পড়ুন!

লেখিকা : পারমিতা চৌধুরী, যাদবপুর, কলকাতা

Continue Reading

Trending